সম্পাদকের কথা

প্রিয় পাঠকবন্ধুরা,

প্রথমেই সবাইকে জানাই নতুন বছরের বুকভরা ভালোবাসা ও শুভেচ্ছা। আরো একটা বছর ঘুরে গেল। গরম অনেকদিন ধরেই পড়ে গেছে, এটা খালি সরকারি শিলমোহর পড়ল বলা যেতে পারে। বছরের মুষ্টিমেয় যে কটা দিন আমরা জাঁকজমক করে বাঙালিয়ানা পালন করি তার মধ্যে এটা একটা। আশা করছি সবাই খুব আনন্দ করেছেন। যদিও গত সারা বছর ধরেই ঘটে চলা নানা খারাপ খবর আমাদের ভালো থাকতে দেয়নি। আসুন আমরা প্রতিজ্ঞা করি নতুন বছরে আমরা সকলে মিলে এই অমানিশা কাটিয়ে তুলতে সাহায্য করব।

গত বছরেই আমাদের আত্মপ্রকাশ। তারপর গুটি গুটি পায়ে পথ চলে প্রথম বড় পদক্ষেপ শারদীয়া সংখ্যা। পাঠকদের উৎসাহ আর ভালোবাসায় এক এক করে প্রকাশিত হয়েছে ১৩টি সংখ্যা। এবারে আমাদের নিবেদন বিশেষ নববর্ষ সংখ্যা। ছোট বড় মিলিয়ে থাকছে সর্বমোট ১২টি লেখা আর ১৪টি কবিতা। শ্রদ্ধেয় মলয় রায়চৌধুরীর লেখায় এবারে আমাদের পত্রিকা ঋদ্ধ। নিয়মিত লেখকরা ছাড়াও বাংলা অনলাইন সাহিত্যের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত সহেলী চট্টোপাধ্যায়, দেবজ্যোতি ভট্টাচার্য আর দ্বৈতা হাজরা গোস্বামীর ভিন্ন স্বাদের গল্পে আপনাদের মন ছুঁয়ে যাবেই। সঙ্গে থাকছে সবার প্রিয় কুটুম কাটাম বিভাগে ২ জন শিল্পীর কাজ আর নিয়মিত দুই ধারাবাহিক। বরাবরের মত অনবদ্য একটি প্রচ্ছদ উপহার দিয়েছেন রুমেলা দাস। আর এই সংখ্যা থেকে আমাদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে অন্যতম নিয়মিত লেখক বিভাবসু। তাকে লুব্ধক ও পরবাসিয়া পাঁচালী পরিবারের সকলের তরফ থেকে জানাই সাদর অভ্যর্থনা।

তাহলে আর দেরি কেন। উঠে বসুন পরবাসিয়ার পক্ষীরাজের পিঠে। কথা দিচ্ছি হতাশ হবেন না। খুব ভালো থাকবেন। আর সবাইকে ভালো রাখবেন। এবারের মতো এইটুকুই।

পাঠকেরা যা পড়ছেন